স্ত্রী-কন্যা হত্যার মিথ্যা মামলায় ফাঁসির দণ্ড নিয়ে কনডেম সেলে বিশ বছর!

243
মিথ্যা মামলায় ফাঁসির দণ্ড

নিউজ ডেস্ক : ৫২ বছর বয়সের মধ্যে ২০টি বছর তাঁর কেটেছে কারাগারে (মিথ্যা মামলায় ফাঁসির দণ্ড) ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তদের নির্ধারিত স্থান কনডেম সেলে। তাও আবার নিজ স্ত্রী ও কন্যা সন্তানকে হত্যার দায়ে। নিজেকে নির্দোষ প্রমাণে দারস্থ হয়েছেন সর্বোচ্চ আদালতের।

 

হত্যায় জড়িত থাকার প্রমাণ না মেলায় সম্প্রতি প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের রায়ে খালাস পেয়েছেন খুলনার জাহিদ শেখ। নির্দোষ হয়েও জীবনের গুরুত্বপূর্ণ ২০টি বছর কেমন ছিলেন কনডেম সেলে? অন্ধকার সেল থেকে মুক্ত হয়ে বর্তমানে কেমনই বা আছেন তিনি? কার কারণে তাঁর এই পরিণতি?

 

স্ত্রী এবং কন্যাকে হত্যার দায়ে (মিথ্যা মামলায় ফাঁসির দণ্ড) মামলা করেন তার শ্বশুর। সেই মামলায় জাহিদ শেখ-কে নিম্ন আদালতে মৃত্যুদন্ড দেয়া হয়। তারপর থেকে তাকে রাখা হয় কনডেম সেলে। কনডেম সেলে কাটানো দুঃসহ সময়গুলো কিছুতেই ভুলতে পারছেন না জাহিদ; প্রতিনিয়ত মৃত্যু ভয় তাকে তাড়া করছে। চোখের সামনে দেখেছেন ফাসি কার্যকরের দৃশ্য, যা কনডেম সেল থেকে দেখা যেতো।

 

জীবনের বিশ বছর কনডেম সেলে কাটানোর পর নির্দোষ প্রমাণিত হয়ে উচ্চ আদালতের রায়ে বেড়িয়ে এসেছেন জাহিদ শেখ। তিনি তার জীবনের এই দীর্ঘ বিশ বছর বিনা অপরাধে জেলে কাটানোর সময়ের জন্য সরকারের কাছে ক্ষতিপূরন চেয়েছেন। কারা হত্যা করেছিল জাহিদ শেখের স্ত্রী ও কন্যাকে? হত্যাকারীদের পরিচয়ও জানতে চান জাহিদ শেখ।

Related Post:
র‍্যাব পরিচয়ে দুই ব্যক্তিকে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা
৫০০ সন্তানের বাবাকে এবার থামতে বললেন আদালত
চট্টগ্রাম আদালতে বিচারককে জুতা ছুড়ে মারলেন আসামি